রূপচর্চায় নানা ‘ফল’


ফল শুধু খাওয়ার নয়, মুখে মাখারও! শরীরের পুষ্টির প্রয়োজন পূরণে তো বটেই, রূপচর্চায়ও জুড়ি নেই ফলের। ত্বকের যত্নে ফল ব্যবহার করলে পাবেন ভালো ফল
 
কলার নানান কলা

কলা এমন এক ময়শ্চারাইজিং এজেন্ট, যা ত্বকে অ্যালার্জি তৈরি করে না। কিন্তু প্রভাব থাকে বহুদিন। একটি কলা কেটে তার সঙ্গে মধু, লেবুর রস ও দুধ মিশিয়ে মুখে, হাতে ও পায়ে লাগালে ত্বকের রুক্ষতা দূর হবে। কেমিক্যাল ট্রিটমেন্টে যাদের চুল রুক্ষ হয়েছে, তারা এই মিশ্রণ চুলে লাগালে চুলের রুক্ষতা দূর হবে এবং কন্ডিশনার হিসেবেও কাজ করবে। এই গ্রীষ্মে ত্বক রোদে পুড়বে, ধুলোবালু জমবে। ঝটপট ক্লিনজার হিসেবে পাকা কলা চটকে নিয়ে মুখে মাখতে পারেন, ত্বক টানটান হবে। অর্ধেক পাকা কলা, দুই চা-চামচ মধু ও এক চা-চামচ চন্দনের গুঁড়া ২০ মিনিট মুখে লাগিয়ে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নিলে দূর হবে ত্বকের কালো ছোপ।

তরমুজে ঠান্ডা

ত্বক সতেজ রাখতে তরমুজ তুলনাহীন। তরমুজ ব্লেন্ড করে কয়েক ফোঁটা মধু ও চালের গুঁড়া মিশিয়ে বানানো স্ক্রাবে মুখত্বক ও শরীরে ঘষে পরিষ্কার করুন। তারপর পানি দিয়ে ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন। লোমকূপ থেকে বের হয়ে আসবে সারা দিনের জমে থাকা ধুলো-ময়লা। রোদে পোড়া দাগ দূর করতেও জুড়ি নেই তরমুজের। তরমুজ হালকা চটকে ফ্রিজে রাখুন। বাইরে থেকে বাড়ি ফিরে রোদে পোড়া অংশে ভালো করে লাগান। ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহার করলে দূর হবে রোদে পোড়া দাগ। তৈলাক্ত ত্বকের জন্য শসার রসের সঙ্গে তরমুজের রস মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন। ১৫ মিনিট মুখে মেখে রেখে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। উপকার পাবেন। তরমুজের রস ডিপ ফ্রিজে রেখে বরফ বানিয়েও মুখে ঘষতে পারেন। নিমেষেই ত্বক হবে সতেজ, সুন্দর।

পেঁপের মুখোশ

ত্বক কোমল ও উজ্জ্বল করতে ব্যবহার করতে পারেন পেঁপে। বিশেষত মাস্ক তৈরিতে পেঁপে অতুলনীয়। আধা কাপ পাকা পেঁপে, ৪ টেবিল-চামচ নারকেলের দুধ এবং ১/৪ কাপ কর্নফ্লেক্স একটি পাত্রে চটকে নিয়ে মাস্ক তৈরি করুন। মুখ, হাত এবং গলায় মেখে ৫ মিনিট স্ক্রাব করুন। পানি দিয়ে ধুয়ে ময়শ্চারাইজার লাগিয়ে নিন। অথবা আধা কাপ পাকা পেঁপে, ৪ টেবিল-চামচ কমলার রস, ৪ টেবিল-চামচ গাজরের রস এবং ১ চা-চামচ মধু একসঙ্গে মিলিয়ে ত্বকে মেখে কিছুক্ষণ রাখুন। সব ধরনের ত্বকেই পেঁপের মাস্ক ব্যবহার করতে পারেন।

কাজের কাজি বাঙ্গি

বাঙ্গিকে বলা চলে প্রাকৃতিক ব্লিচ। ত্বকে ফেয়ার পলিশের কাজ করে বাঙ্গি। দূর করে কালো ভাব। কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়া। বাঙ্গির সঙ্গে টকদই মিশিয়ে দিলে তা কাজ করবে ক্লিনজার হিসেবে। ত্বক উজ্জ্বল করতে মটর ডাল বাটা, সয়াবিন অথবা চালের গুঁড়া কিংবা ময়দার সঙ্গে বাঙ্গি মিশিয়ে মাস্ক তৈরি করুন। একটু ম্যাসাজ করে ১০-১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। ত্বক পরিষ্কার ও ত্বকের ভাঁজ পড়া কমাতে বাঙ্গির শাঁস, মটর ডাল বাটা, ডিমের কুসুম, কয়েক ফোঁটা লেবুর রস ও মধু একসঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করন। শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত মুখে লাগিয়ে রাখুন। এবার পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। সপ্তাহে তিন দিন ব্যবহার করবেন। নিয়মিত ব্যবহারে ত্বকের ভাঁজ পড়া ভাব কমবে। ত্বক হবে সতেজ।

দাগ দূর হবে ডাবে

চুলের জন্য যেমন নারকেল, ত্বকের জন্য তেমনি উপকারী কচি ডাব। প্রতিদিন দুটো ডাবের পানি পান করলে কমনীয়তা বাড়ে ত্বকের। নিয়মিত কচি ডাবের পানি দিয়ে মুখ ধুলে বসন্তের দাগও দূর হয়। শুধু বসন্ত নয়, ব্রণের দাগও দূর করা যায় ডাবের জলে ধুয়ে। একটু তুলো ডাবের পানিতে ভিজিয়ে মুখে লাগান। শুকোতে দিন। তারপর হালকা ম্যাসাজ করুন। এতে মুখে সুন্দর উজ্জ্বল ভাব আসবে। ত্বক হবে কোমল ও মসৃণ।

ঐতিহাসিক লেবু

গরমে রূপচর্চায় লেবু যেন প্রকৃতির আশীর্বাদ। প্রাচীন মিসর ও গ্রিসের রাজকুমারীদের কাছে লেবু ছিল রূপচর্চার বিশেষ উপকরণ। আমাদের দেশি লেবু পেডিকিউর মেনিকিউরের অপরিহার্য উপাদান। নখের হলুদ ছোপ তুলতে, কনুই, হাঁটুর কালো দাগ তুলতে লেবুর ওপর চিনি ছড়িয়ে ম্যাসাজ করুন। দাগ ছোপ মুছে যাবে। ত্বকের ক্ষত পূরণেও লেবু ভারী কার্যকর। একটু চিনি ছড়িয়ে ম্যাসাজ করতে হবে শুধু। লেবুর সঙ্গে মধু মিশিয়ে পায়ের পাতায় মেখে পাঁচ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। কোমল হবে পায়ের পাতা। তবে নখ বাদে ত্বকে কখনো সরাসরি লেবুর রস লাগাবেন না। লেবুর এসিডিক উপাদানে ত্বকের ক্ষতি হতে পারে।
আনারসও আছে

রূপচর্চায় আনারসের ব্যবহার জনপ্রিয় নানা দেশে। আমাদের দেশেও এই ব্যবহার বাড়ছে নিত্যদিন। আনারস ত্বকের মৃত কোষ, ধুলাবালি ও তেল সহজেই বিদায় করে। আনারসের স্ক্রাব তৈরি করে ব্যবহার করতে চাইলে চার টুকরো তাজা আনারস, আধা কাপ টিনজাত আনারস এবং তিন চা-চামচ জলপাই তেল একত্রে ব্লেন্ড করে মাস্ক তৈরি করুন। মুখে ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলবেন। আনারস, লেবু ও কমলার রস একসঙ্গে মেশান। সঙ্গে নিন অল্প ময়দা। পেস্টটি মুখে লাগান। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। আনারসের যে প্যাকই ব্যবহার করুন, মুখ পরিষ্কার করার পর অবশ্যই কোনো ময়শ্চারাইজার মাখতে হবে। নইলে ত্বক শুষ্ক হয়ে যেতে পারে।

0 comments:

Post a Comment

" কিছু স্বপ্ন আকাশের দূর নীলিমাক ছুয়ে যায়, কিছু স্বপ্ন অজানা দূরদিগন্তে হারায়, কিছু স্বপ্ন সাগরের উত্তাল ঢেউ-এ ভেসে যায়, আর কিছু স্বপ্ন বুকের ঘহিনে কেদে বেড়ায়, তবুও কি স্বপ্ন দেখা থেমে যায় ? " সবার স্বপ্নগুলো সত্যি হোক এই শুভো প্রার্থনা!

Follow me