সঠিক পোশাকে কমিয়ে ফেলুন বাড়তি ওজন


ফ্যাশনের দুনিয়া দিনকে দিন বিস্তৃত হচ্ছে। একদিকে যেমন রয়েছে পোশাকে বাঙালিয়ানা, পাশাপাশি রয়েছে ভিন্ন দেশের ভিন্ন সংস্কৃতির ছোঁয়াও। মডেলদের শরীরে দারুণ ফিটিং ডিজাইনিং পোশাকগুলো দেখে অনেকেই দীর্ঘশ্বাস চেপে যান। মনে মনে ভাবেন, ফ্যাশন নিয়ে মাথা ঘামিয়ে লাভ কী? আগে চাই ওই রকম ফিগার! সৃষ্টিকর্তা একেকজনকে সৃষ্টি করেছেন একেকভাবে। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে মানুষের পক্ষে মেকওভার করা সম্ভব। পোশাক দিয়ে ঢেকে ফেলা যায় শরীরের অনেক খুঁত। বিশেষ করে যাঁদের শারীরিক গড়ন ভারী বা মোটা, তাঁরা পোশাকের ক্ষেত্রে একটু সচেতন এবং কৌশলী হলেই নিজেকে উপস্থাপন করতে পারবেন আকর্ষণীয়ভাবে। জেনে নিন কয়েকটি উপায় নিজেকে কম মোটা দেখানোর জন্য।

 নারীর ক্ষেত্রে :

  • ১. মোটা গড়নের মেয়েদের মাঝারি ঝুলের কামিজ পরলে ভালো দেখায়। খুব লম্বা বা ঝোলা টাইপের কামিজ পরবেন না। আবার খুব খাট আকারের কামিজও পরবেন না।
  • ২. কামিজে হাতের কাজ, ব্লক, প্রিন্ট, এমব্রডায়রির কাজ থাকলে তা যেন লম্বালম্বি হয়। আড়াআড়ি লাইনের কাজ এড়িয়ে চলুন।
  • ৩. খুব ঢিলেঢালা বা বড় পাওয়ালা সালোয়ার এড়িয়ে চলুন। আবার খুব চাপা ধরনের সালোয়ারও পরবেন না। বরং মাঝারি রকমের চাপা সালোয়ার পরতে পারেন।
  • ৪. হাত বেশি মোটা হলে বেশি ছোট হাতওয়ালা কামিজ না পরাই ভালো। একটু বড় করে হাত বানান। থ্রি কোয়ার্টার হাতের জামা পরাই সবচেয়ে নিরাপদ।
  • ৫. কামিজের পেছনের গলা খুব বেশি বড় করে না পরাই ভালো। তাই বল একদম ছোট গলা পরবেন না, এতে আরও মোটা দেখাবে।
  • ৬. খুব ভারী ফেব্রিক্স বা বেশি কাজের কামিজ না ব্যবহার করাই ভালো। খুব বড় বড় প্রিন্টের পোশাক পরবেন না। জংলি প্রিন্টের পোশাকও এড়িয়ে চলুন।এক রঙা পোশাকে যে কাউকেই অনেকটা স্লিম দেখায়।
  • ৭. পাশ্চাত্য পোশাক বা ফতুয়ার সাথে জিনস পরতে চাইলে একটু গাঢ় রঙের জিনস পরুন। নেভি ব্লু, কালো, গাঢ় ধূসর রঙের জিনস যেকোনো পোশাকের সাথেই পরতে পারেন।
  • ৮. শার্ট পরতে চাইলে এক রঙা শার্ট বেছে নিন। লম্বা বা কোনাকুনি স্ট্রাইপের ফিটিং শার্টও ভালো লাগবে। স্কার্ফ ব্যবহার করলে ভি বা ওয়াই ম্যাপে বাঁধুন।

পুরুষের ক্ষেত্রে :

  • ৯. মোটা বলেই যে ফ্রি সাইজের পোশাক পরতে হবে, তা কিন্তু নয়! অনেকেই ভাবেন মোটা মানেই ঢোলা পোশাক পরা। এটা কিন্তু একদম ভুল ধারণা! একটু কষ্ট করে নিজের সাইজের পোশাক খুঁজে বের করুন এবং পরুন। প্রয়োজনে রেডিমেড পোশাক না কিনে পোশাক বানিয়ে পরুন।
  • ১০. প্যান্টের ফিটিংয়ের ব্যাপারে খেয়াল রাখুন। ঢোলা প্যান্টে থাই কিন্তু আরো মোটা দেখাবে! প্রয়োজনে দর্জির কাছ থেকে ঠিক করে নিন।
  • ১১. পোশাকের ক্ষেত্রে একটু গাঢ় রং বেছে নিন। শার্ট বা টিশার্ট যেটাই পরবেন না কেন, তা যেন গাঢ় রঙের হয় এবং অবশ্যই যেন আপনার ব্যক্তিত্বের সাথে মানানসই হয়। স্ট্রাইপ শার্ট পরতে চাইলে লম্বালম্বি স্ট্রাইপের শার্ট বেছে নিন। চেকের ক্ষেত্রে ছোট চেকের শার্ট পরুন।
  • ১২. খুব মোটা বা চওড়া কলারের পোশাক পরবেন না। এতে ঘাড় ছোট দেখায়, ফলে আরো মোটা দেখাবে। শার্টের সবেচেয়ে উপরের বোতাম কখনোই লাগাবেন না। এতেও ঘাড় ছোট দেখায়।
  • ১৩. যদি ভুঁড়ি থাকে তাহলে শার্ট একটু ঢিলাভাবে ইন করুন। বিশেষ করে পেটের জায়গাটা এমনভাবে শার্ট ইন করুন যাতে বাড়তি পেট কম বোঝা যায়।
  • ১৪. চওড়া বেল্ট ব্যবহার করবেন না। মাঝারি আকারের বেল্ট ব্যবহার করুন। বেল্টে যেন ভারী কাজ না থাকে। টাই খুব বেশি চওড়া এবং রঙচঙে পরবেন না। এতে নজর পেটের দিকে পড়ে যায় এবং বেশি মোটা দেখায়।
  • ১৫. হাফহাতা শার্ট পরতে চাইলে খুব বেশি ফিটিং শার্ট না পরাই ভালো। এক্ষেত্রে হাওয়াই শার্ট পরতে পারেন।
  • ১৬. স্ট্রেইট কাটের জিনস পরুন। ন্যারো কাটের প্যান্ট ভুলেও পরবেন না। ফর্মাল প্যান্টের ক্ষেত্রে গাঢ় রং বেছে নিন।

0 comments:

Post a Comment

" কিছু স্বপ্ন আকাশের দূর নীলিমাক ছুয়ে যায়, কিছু স্বপ্ন অজানা দূরদিগন্তে হারায়, কিছু স্বপ্ন সাগরের উত্তাল ঢেউ-এ ভেসে যায়, আর কিছু স্বপ্ন বুকের ঘহিনে কেদে বেড়ায়, তবুও কি স্বপ্ন দেখা থেমে যায় ? " সবার স্বপ্নগুলো সত্যি হোক এই শুভো প্রার্থনা!

Follow me