সকাল বেলায় যে ৬টি সুবাস ভালো করে দেয় মন!


 

ঢাকা : ধরুন সুন্দর মিষ্টি একটা সুবাস আপনার নাকে ভেসে আসছে। কেমন লাগবে আপনার? নিশ্চয়ই ভালো? মানুষ প্রায় দশ হাজার রকমের গন্ধ অনুভব করে থাকে এবং প্রতিদিন প্রায় তেইশ হাজার বার নিঃশ্বাস নেয়। এই নিঃশ্বাসের সাথে যখন ভালো বা খারাপ গন্ধ যায় তখন তা মস্তিষ্কে ভিন্ন ভিন্ন অনুভূতি সৃষ্টি করে এবং মনের উপর প্রভাব ফেলে। কিছু গন্ধ আমাদের মন ভালো করে দেয়, কোনোটা মনযোগ বাড়ায় আবার কোনোটা রোমান্টিক অনুভূতি দেয়। সুন্দর গন্ধ হলো মন ভালো করার একটি শক্তিশালী মাধ্যম।

সকাল বেলায় মন ভালো রাখাটা বেশ জরুরী কারণ মন খারাপ হয়ে গেলে সারাদিনের কর্ম উদ্দ্যমটাই চলে যায়। বেশ বিরক্তি নিয়ে কাটে সারাটা দিন। আর মনটা যদি নিমিষেই ভালো করে ফেলা যায় শুধু মাত্র ঘ্রাণ শুঁকেই তাহলে তো কথাই নেই। আসুন জেনে নেয়া যাক মন ভালো করে এমন ৬টি সুবাসের নাম।

কফি

কফি না খেলে সতেজ লাগে না? কফি খাওয়ার সময় এর গন্ধ নিন, চনমনে হয়ে যাবেন নিমিষেই। সিউল ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে সকালে ঘুম থেকে উঠে কফির সুবাস নিলেই মস্তিষ্ক সতেজ হয়ে যায় এবং ঘুম ঘুম ভাব কেটে যায় অনেকটাই। এছাড়াও কফির ঘ্রাণ নিলে বিষন্নতা কমে যায় এবং মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা তাৎক্ষনিক ভাবেই বেড়ে যায়। তাই প্রতিদিন সকাল বেলা এক কাপ গরম কফি খান এবং গন্ধ নিন। সারা দিনটাই বেশ ফুরফুরে মেজাজে কেটে যাবে।

লেবুর সুবাস

সম্প্রতি জাপানের গবেষকরা আবিষ্কার করেছেন যে প্রতিদিন সকাল সকাল লেবুর সুবাস নিলে মনটা বেশ ফুরফুরে হয়ে যায়। তাছাড়াও লেবুর সুবাস নিলে মনোযোগ বাড়ে এবং মন শান্ত থাকে। ফলে রাগ ও অতিরিক্ত মেজাজ প্রশমিত হয়। সকালে উঠে একটি তাজা লেবু কেটে সুবাস নিয়ে নিতে পারেন অথবা কুসুম গরম পানিতে লেবু ও মধু দিয়ে শরবত বানিয়ে খেতে পারেন। লেবুর সৌরভযুক্ত মোম বাতি জ্বালিয়ে নিলেও লেবুর কাজই করবে।

বেলি ফুলের সুবাস

বেলি ফুলের ঘ্রাণ নার্ভকে শান্ত রাখে। ফলে অস্থিরতা ও উদ্বিগ্নতা কমে যায় বেলি ফুলের সুবাস পেলে। তাছাড়াও বেলিফুলের সুবাস মূহূর্তের মধ্যেই মন ভালো করে দিতে পারে। বেলিফুলের ঘ্রাণ মস্তিকে আত্মবিশ্বাসের অনুভূতি তৈরী করে এবং কাজে কর্মে উৎসাহ যোগায়। বেলি ফুল রাতের বেলা ফোটে এবং এর ঘ্রাণ ও রাতেই বেশি থাকে। রাতে কিছু বেলি ফুল শোবার ঘরে রেখে দিন। পুরো রুমটা সুবাসিত হয়ে থাকবে এবং রাতের ঘুম ভালো হবে। তাছাড়াও মন শান্ত করতে বেলি ফুলের সুবাসযুক্ত সাবান দিয়ে গোসলটা সেরে নিতে পারেন অথবা বেলি ফুলের গন্ধযুক্ত এয়ার ফ্রেশনার রাখুন রুমে।

দারুচিনির ঘ্রাণ

প্রতিদিন কত খাবারেই তো দারুচিনি ব্যবহার করি আমরা। কিন্তু এটা কি জানেন যে দারুচিনির ঘ্রাণ মন ভালো করে দেয়? গবেষণায় জানা গেছে যে দারুচিনির ঘ্রাণ মস্তিষ্কে রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে দেয় এবং শরীরে উদ্দীপনা জাগিয়ে তোলে। ফলে ভালো লাগার অনুভূতি সৃষ্টি হয়। দারুচিনির ঘ্রাণ মনযোগ বাড়িয়ে তোলে এবং ঝিমুনি কাটাতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিন সকালের কিংবা বিকালের নাস্তায় দারুচিনির গুঁড়ো ছিটিয়ে দিন সম্ভব হলে। অথবা চায়ের মধ্যে এক টুকরো দারুচিনি দিয়ে পানি ফুটিয়ে নিন। দারুচিনির ঘ্রাণ আপনার মনকে তাজা করে তুলবে।

গোলাপের ঘ্রাণ

হার্ভাড ইউনিভার্সিটির গবেষকদের একটি গবেষণায় জানা গেছে যে সকাল বেলায় গোলাপ ফুলের ঘ্রাণ মূহূর্তেই মন ভালো করে দেয় । তাদের একটি জরিপে দেখা যায় যে যেসব ব্যক্তি সকালবেলা গোলাপের ঘ্রাণ নিয়েছে তারা সারাদিন ফুরফুরে মেজাজে ছিলো এবং তাদের কর্মক্ষমতা অনেকটাই বেড়ে গিয়েছিলো।

পুদিনা পাতার ঘ্রাণ

গবেষকদের মতে পুদিনার ঘ্রাণ মন ভালো করে দেয় এবং মনযোগ বাড়াতে সহায়তা করে। পুদিনার ঘ্রাণ নিলে ঝিমুনিও কমে যায়। তাই এক বোতল পুদিনার এসেন্সিয়াল তেল রাখুন ঘরে। প্রতিদিন সকালে উঠে তেলের ঘ্রাণ নিয়ে নিতে পারেন অথবা পুদিনা চা বানিয়ে খেতে পারেন। তাহলে কিছুক্ষনের মধ্যেই মনটা ভালো হয়ে যাবে। ঘরের জানালায় কিছু পুদিনা গাছ লাগিয়ে দিতে পারেন। যখনই মন খারাপ থাকবে তখন পুদিনার ঘ্রাণ নিয়ে মনটাকে ফুরফুরে করে নিতে পারবেন সহজেই। দুপুরে কিংবা রাতে সালাদের সাথেও পুদিনা পাতা দিয়ে নিতে পারেন। এমনকি পুদিনার সুবাসের চুইং গাম খেলেও মনের উপর ভালো প্রভাব পড়ে।

0 comments:

Post a Comment

" কিছু স্বপ্ন আকাশের দূর নীলিমাক ছুয়ে যায়, কিছু স্বপ্ন অজানা দূরদিগন্তে হারায়, কিছু স্বপ্ন সাগরের উত্তাল ঢেউ-এ ভেসে যায়, আর কিছু স্বপ্ন বুকের ঘহিনে কেদে বেড়ায়, তবুও কি স্বপ্ন দেখা থেমে যায় ? " সবার স্বপ্নগুলো সত্যি হোক এই শুভো প্রার্থনা!

Follow me