রাতে প্রবাসীর স্ত্রী ও জ্বীন তাড়ানো ফকির বাবা!


ঢাকা : একেবারে গ্রামের মানুষ। শাহেলা বেগমের বাড়ী রসুলপুর গ্রামে। সাধারণ সাদামাটা গৃহস্ত ঘরের মেয়ে সে। লেখাপড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় পযৃন্তই শেষ। দেখতে বেশ সুন্দর। গায়ের রং বেশ ফর্সা, শুদ্ধ ব্যকরণের শরীর, উচ্চতা পরিমিত। বিয়ে হয়েছে কম বয়সে। স্বামী প্রবাসী। এখন বয়স খানিকটা বেড়েছে। দুই সন্তানের মা হলেও শরীরের ভাঁজ নষ্ট হয়নি। জ্বালা ধরানো যৌবন এখনো অনেক পুরুষের ঘুম হারাম করার জন্য যথেষ্ট। স্বামী নুরুল ইসলাম বিদেশে থাকার কারণে মাজেদাও উন্মুখ থাকে পুরুষের সঙ্গ পেতে। পাড়া প্রতিবেশি অনেক ছেলে বুড়ো অনেকের সাথেই তার ভাল সম্পর্ক। তবে চটি টাইপের কথাবার্তা আর মাঝে মধ্যে মানুষের চোখ ছাপিয়ে হাত ধরাধরি, দু’একবার দু’একজনের অতি আগ্রহের কারনে বুকে দু’একটা টিপ খাওয়া ছাড়া তেমন কোন বড় যৌন সম্পর্ক কারও সাথে হয়ে ওঠেনি। আনেকেই বলে স্বামী বিদেশে থাকলে নাকি, মহিলারা কারও না কারও সাথে অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পরে। কিন্তু মাজেদার ক্ষেত্রে তা হয়ে ওঠেনি। যদিও মাজেদা অনেকবার সেরকম পরিস্থিতির কাছে গিয়েও ফিরে এসেছে।মাজেদার দুই বাচ্চার মধ্যে ছোট বাচ্চাটা প্রতিবন্ধী। বাচ্চাটা যখন ছোট ছিল তখন ওর প্রতিবন্ধীতা টের পাওয়া যায়নি। যখন বাচ্চাটার বয়স পাঁচ বছর পেরুল তখন টের পাওয়া গেল সে কথা বলতে পারছিল না, হাটার মধ্যে জড়তা ছিল ইত্যাদি উপসর্গগুলো দেখা দিল। গ্রমের মানুষরা বলল ওকে জ্বীনে ধরেছে। হাসেম কাকা এক ফকিরের সন্ধান দিল যে এই ধরনের জ্বীন তাড়াতে ওস্তাদ। পাশের গ্রামের রহিম মিয়ার ছেলেকে এরকম জীনের হাত থেকে বাচিয়েঁছে ওই ফকির। তবে তার কিছু খরচা পাতি আর নিয়ম কানুন আছে। যেগুলো ঠিকমতো পালন না করলে জ্বীন আবার আসবে। তাই কিছু সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। অনেক সময় জ্বীন দেহ বদল করে অন্য কারো শরীরে আশ্রয় নিতে পারে। তখন সে উল্টোপাল্টা বলতে পারে। তবে সেকথা বিশ্বাস করা যাবেনা। এরকম আরও নিয়ম কানুন আছে, যদি ফকিরকে ডাকা হয় তবে উনিই সব বলে দিবেন। মাজেদা বাচ্চার সুস্থতার জন্য সবই করতে পারেন। তাই স্বামী, শাশুড়ী ও মুরুব্বিদের অনুমতি নিযে হাসেম চাচাকে ফকির ডাকার জন্য বললেন।

সেদিন ছিল বৃহস্পতিবার। অমাবশ্যার রাত্রী। আসরের পরে মাগরীবের আগে ফকির বাবা এলেন মাজেদার বাড়ী। সাথে দাড়ি গোঁফওয়ালা আরও তিনজন শক্তপোক্ত পুরুষ একই রকম দেখতে এবং দুজন মধ্যবয়সী শক্তপোক্ত মহিলা। সবার পরনে সাদা লুঙ্গি, পাঞ্জাবী, মাধায় পাগড়ী। মহিলারা সাদা শাড়ী। বাড়ীতেঢুকে ওরা সবাই ওদের সাথে আনা মাদুর পেতে বগোল হয়ে বসে পরলো। নীচু স্বরে জিকিরের মতো করতে শরু করলো। একসময় একজন দলনেতা একজন পুরুষের কানে কানে কি যেন বললো। সেটা শুনে সহকারী ফকিরটি হাসেম চাচাকে ডেকে বললো একটা ঘর খালি করে দিতে যেখানে আগরবাতী জ্বলতে থাকবে, মোমবাতি মজুদ রাখতে হবে, কিছু দড়ি রাখতে হবে যাতে জ্বীন যদি অতি উত্তেজিত হয়ে পরে তাহলে বাঁধতে হবে। এছারা আরও কিছু উপকরণ লাগবে যা আগে থেকেই তৈরী ছিল। ওরা সবাই ওখানে গিয়ে বসলো। ঘরের মাঝখানে একটা বিছানা পাতা, আর তার চারদিকে গোল করে ছোট ছোট দস্তরখানা বিছিয়ে সবাই বসে পরলো। ততক্ষণে মাগরীব পেরিয়ে রাতের আঁধার নামতে শুরু করেছে। মোমবাতির আলোয় টিনের দোচালা ঘরের ভেতরটা ঈষত আলোকিত। ধুপবাতি জালিয়ে ঘরটা ধোঁয়াময়। ফকির বাবা এবার জিজ্ঞাসা করলো বাচ্চার সাথে কে থাকবে? হাসেম চাচা বললো, বাচ্চার মা।

: তারে আইতে কও।

মাজেদা সামনে গেল। - সালামালেকুম।

: অলাইকুম সালাম। জ্বীন আসার পর তোমার ছেলে ছটফট করতে পারে, আবার এমন হইতে পারে সে ঘুমায়া যাইতে পারে, জ্বীন তোমার উপর ভর করতে পারে। তুমি সহ্য করতে পারবা?

: জ্বী হুজুর যত কষ্টই হোক আমি সহ্য করতে পারুম।

: আমাগো মতো চারজনের সমান শক্তি হইতে পারে জ্বীনের, সহ্য করতে পারবা?

: পারমু হুজুর।

: ঠিক আছে তয়লে তুমি গোসল কইরা, তারপরে অজু করবা। আর সাবধান যখন জ্বীন আইবো তখন কেউ যেন ঘরে না ঢোকে, ঢুকলে জ্বিনের হাতে মাইর খাইতে পারে, কেউ যেন টিনের ফুটা দিয়া উকিঁ না দেয়। তয়লে চোখ কানা হইয়া যাইতে পারে। আমি আবার সাবধান কইরা দিলাম জ্বীন আইলে কেউ যেন উকিঁ না দেয় আর ঘরে না ঢোকে।

মাজেদা যত্ন করে গোসল করে ছেলেকে নিয়ে ঘরে ঢুকে মাঝখানের বিছানায় বসলো। ওকে ঘিরে বসে আছে চারজন ফকির আর দুজন সহকারী মহিলা। তখন রাত প্রায় ন’টা বাজে। সময়ের বিবেচনায় তেমন একটা রাত না হলেও গ্রাম হিসাবে তখন প্রায় মধ্যরাত। আশেপাশের বাড়ীর উতসুক কেউ কেউ বাইরে জমায়েত জ্বীনের আলামত দেখার জন্য।

সাদা কাপড়ে মাজেদাকে দেখাচ্ছিল বৈষ্ণবীর মতো। ওর পরিপুষ্ট স্তনদুটো স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল। বাচ্চাটা নড়াচড়া করছিল। একে শান্ত করতে দুএকবার হাত উঁচু করতে গিয়ে দেখা যাচ্ছিল হাতের বগলতলা, আর পাঁজরের দুপাশ। মাজেদার খানিকটা লজ্জাও লাগছিল। আবার ভাবলো ফকির বাবাদের সামনে আবার লজ্জা কি। তারা সবাই জিকিরের মতো করতে শুরু করলো- আয়..আ…য়..আ…য়… আয়..আ…য়..আ…য়… এভাবে অনেক্ষণ একঘেয়ে সুরে। মাজেদার প্রায় ঘুম পেয়ে যাচ্ছিল অনেক কষ্টে ঘুম আটকাল। কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যে ছেলেটা ঘুমিয়ে পরলো। ফকির বাবা ইশারায় ছেলেকে শুইয়ে দিতে বললো। মাজেদা বিছানার একপাশে ছেলেকে শোয়ালো। ফকির বাবা আস্তে আস্তে বললো তোর ছেলে ঘুমিয়ে পরেছে তার মানে জ্বীন তোর উপর ভর করতে চায়। তুই এক কোনায় বসে চোখ বন্ধ করে, দুইহাত উঁচু করে মোনাজাতের ভঙ্গি কর। কিছুক্ষণ পরে দেখবি জ্বীন তোর হাত ধরবে। তুই চোখ খুলবি না। চোখ খুললেই সর্বনাস। তুই আর সহ্য করতে পারবি না। চিল্লাচিল্লি করবি, গালিগালাজ করবি। জ্বীন কিন্তু তখন তোরে মারবে। তাই খবরদার চোখ খুলবি না। ঠিক আছে? মাজেদা বলে ঠিক আছে।

মাজেদা বিছানার এক কোনায় বসে, চোখ বন্ধ করে হাত উঁচু করে। ও বুঝতে পারে হাত উঁচু করাতে ওর দুটো হাত। কিন্তু ফকির বাবার কথা অনুযায়ী সে হাত নামিয়ে কাপড় ঠিক করার কথা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে জ্বীনের স্পর্ষ অনুভব করতে ব্যস্ত। সারা ঘর জুড়ে সম্মোহনী সুরে শুধু আয়..আ…য়..আ…য়… আয়..আ…য়..আ…য়… ধ্বনী। হঠাত মাজেদা অনুভব করলো কি যেন একটা ওর হাতে ঠেকলো। ও চোখ খুলতে গিয়েও খুললো না। আস্তে করে শুধু বললো বাবা..।

0 comments:

Post a Comment

" কিছু স্বপ্ন আকাশের দূর নীলিমাক ছুয়ে যায়, কিছু স্বপ্ন অজানা দূরদিগন্তে হারায়, কিছু স্বপ্ন সাগরের উত্তাল ঢেউ-এ ভেসে যায়, আর কিছু স্বপ্ন বুকের ঘহিনে কেদে বেড়ায়, তবুও কি স্বপ্ন দেখা থেমে যায় ? " সবার স্বপ্নগুলো সত্যি হোক এই শুভো প্রার্থনা!

Follow me