এ যুগের বিদ্যাসাগর

 

ঢাকা: রাজু তার তিন ভাইবোন ও মা সহ থাকে ঢাকার উত্তরার সোনারগাঁ জনপথ রোডের পাশে একটি ঝুপড়ি ঘরে৷ রাজুরা ছিল সাত ভাইবোন৷ এর মধ্যে একজন মারা গেছে৷ বাকি বড় দুই ভাই বিয়ে করে আলাদা থাকছে৷ তারা পরিবারের খোঁজখবর নেন না৷ রাজুর বাবা বছর চারেক আগে মারা গেছেন ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে৷

রাজু স্থানীয় একটি সরকারি স্কুলে দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে৷ সকাল আটটা থেকে দশটা পর্যন্ত ক্লাস করার পর সে চলে যায় ওয়ার্কশপে কাজ করতে৷ সেখানে থাকে রাত আটটা পর্যন্ত৷ মাঝে দুপুর দুইটা থেকে তিনটা পর্যন্ত মসজিদে যায় আরবি শিখতে। এরপর রাত আটটায় ঘরে ফিরে পড়াশোনা করে৷ কিন্তু ঘরে শুধু একটা আলোর ব্যবস্থা থাকায় মা সেটাতে কাজ করেন৷ তাই পড়ালেখা করতে তাকে চলে যেতে হয় ফুটপাতে, যেখানে রাস্তার লাইটের আলো আছে। রাজুর সঙ্গে পড়ে তার বোন বৃষ্টি ও ছোট ভাই ভান্ডারি৷ বৃষ্টি একই স্কুলে দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে।

কথা প্রসঙ্গে রাজু জানালো, রাস্তার পাশে পড়ার সময় ধুলাবালির কারণে তার সমস্যা হয়৷ যে ওয়ার্কশপে সে কাজ করে সেখান থেকে কোনো টাকা পয়সা দেয় না। শুধু ঈদে জামাকাপড়, জুতা দেয়।

এ প্রসঙ্গে রাজুর মা জানান, ‘‘আমি অসুস্থ৷ না জানি কখন কি হয়৷ তখন ছেলেমেয়েদের কি হবে৷ আমার তো জমিজমা, ঘরবাড়ি নাই৷ তাই কাজ শিখুক৷ যদি কাজে লাগে?'' এরপর এই অশিক্ষিত মা বললেন, ‘‘কাজ না করলে সেই সময়টা দুষ্ট ছেলেপিলের সঙ্গে মিশে খারাপ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকতে পারে৷''

রাজুর মা আরো জানালেন তাঁর কানের নীচে টিউমারের মতো হয়েছে৷ তিনি হোমিওপ্যাথি ওষুধ খাচ্ছেন৷ কিন্তু অর্থের অভাবে নিয়মিত খেতে পারছেন না৷ ইটভাঙার কাজ করে পাঁচজনের সংসার চালান রাজুর মা। রাজু তার মায়ের ইচ্ছা অনুযায়ী পড়ালেখা করে ভবিষ্যতে জজ হতে চান৷ আর বৃষ্টি ও ভান্ডারি ডাক্তার হয়ে মায়ের চিকিৎসা করতে চায়৷

0 comments:

Post a Comment

" কিছু স্বপ্ন আকাশের দূর নীলিমাক ছুয়ে যায়, কিছু স্বপ্ন অজানা দূরদিগন্তে হারায়, কিছু স্বপ্ন সাগরের উত্তাল ঢেউ-এ ভেসে যায়, আর কিছু স্বপ্ন বুকের ঘহিনে কেদে বেড়ায়, তবুও কি স্বপ্ন দেখা থেমে যায় ? " সবার স্বপ্নগুলো সত্যি হোক এই শুভো প্রার্থনা!

Follow me