পতিত বাড়িতে একা


বাবা আর আমি শহরে এক আত্বীয়ের বাসা যাব, সেখানে রাত্রি অবস্থান করে সকালে চক্ষু হাস্পাতালে চোখের সমস্যার কারনে ডাক্তার দেখাব। শহর থেকে বাড়ি দূর বিধায় আমাদের এ ব্যবস্থা। হাসপাতালে যে লম্বা লাইন পরে খুব ভোরে পৌছাতে না পারলে অসুবিধায় পরতে হয়।

যাত্রাপথে প্রায় ত্রিশ চল্লিশ মাইল যাওয়ার পর হঠাত আমাদের বাস টা লাইনে দাঁড়ানো আরো কয়েকটা বাসের পিছনে দাঁড়িয়ে গেল।কেন দাড়াল, আমাদের বাসের যাত্রীরা কেউ কিছু বুঝলাম না। একজন যাত্রী একটা লোক কে জিজ্ঞেস করল, এই যে ভাই কি হয়েছে ,কিছু জানেন? জবাবে বলল, আমি আপনার মত একজন যাত্রী, কিছুই জানিনা।

মুহুর্তের মধ্যে কয়েকশত বাস ট্রাক এক্টার পিছে একটা দাঁড়িয়ে বিরাট লাইন হয়ে গেল। কিছু কিছ বাস এলো পাথারী দাঁড়িয়ে রোডের জ্যামটাকে আরো দুর্ভেদ্য করে তুলল। রাস্তায় হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ নরনারী বাস থেকে নেমে হাটাহাটি করতে লাগল। কারো কোন গন্তব্য নেই, সবাই শুধু হা হুতাশ করে যাচ্ছে কিভাবে গন্তব্যে যাবে। এভাবে থাকতে থাকতে রাত নেমে এল। দূর দুরান্তের সব যাত্রীদের সবাই দুশ্চিন্তায় পরে গেল। কোথায় যাবে, কি করবে, কিভাবে রাত কাটাবে। বিশেষ করে যাদের সাথে মহিলা আছে তারা খুব সমস্যায় পরে গেল। সবাই বলাবলি করছিল চিটাগাং এর একজন প্রভাবশালী নেতাকে গ্রেপতার করাতে তার সমর্থক রা রোড ব্লক করে রেখেছে, আজ নয় শুধু আগামীকাল ও গাড়ি ছারবে কিনা সন্দেহ আছে।

আমি আমার বাবা সবার মত গাড়ি হতে নেমে গেলাম, মানুষের প্রচন্ড ভীর, হাটতে ও কষ্ট হচ্ছিল, একেত অন্ধকার রাত্রী। কিছু মানুষ মিছিল দিচ্ছিল মেয়রের মুক্তি চাই , দিতে হবে। একজন লোক কানে কানে আমার বাবাকে সাবধান করে দিয়ে বলল, “চাচাজী আপনি বুড়ো মানুষ শুনছি মেয়েদেরকে নিয়েও কিছু বদমায়েশ ছেলে টানাটানি করছে, একটু সাবধানে আপনার মেয়েকে আগলে রাখবেন” শুনে আমার বুক ধপাশ করে উঠল। কিছুক্ষন পর একটা মানুষের কাতর আহাজারী শুনতে পেলাম, কেদে কেদে বলছে তার সহায় সম্বল সব নেতার সমর্থক কিছু যুবক কেড়ে নিয়ে গেছে। সে এখন নিঃস্ব। আমরা বাপ মেয়ে অন্য সবার মত গন্তব্যহীন ভাবে হাটছিলাম। কিছুদুর যাওয়ার পর একটা মহিলা চিতকার করে করে কেদে কেদে ডাকছে দীপালী তুই কোথায় গেলি। বুঝলাম তার মেয়েকে হারীয়ে ফেলেছে, জিজ্ঞেস করার কোন সুযোগ নেই, বাপ -মেয়ে একটু ফাক হলে ভীড়ের মাঝে যে কেউ হারিয়ে যেতে পারে। দীপালীর জন্য খুব চিন্তা হল , স্রষ্টাই ভাল জানে তার ভাগ্যে কি ঘটেছে।

বাবা হাটতে পারছিলনা, তবুও আমার মত অবিবাহিতা অষ্টাদশী মেয়েকে নিয়ে অজানা অচেনা রাতের অন্ধকারে কোন জায়গায় বিশ্রাম করবে ? তাছাড়া ভীড়ের মধ্যে দাড়ানোর সুযোগ ও নেই, কষ্ট হলেও হাটছে। হঠাত বাবা কারো সাথে ধাক্কা খেয়ে পরে গেল, আমি বাবাকে ধরতে গেলাম, এমন সময় কে যে আমাকে ধাক্কা দিয়ে বাবার কাছ থেকে দূরে সরিয়ে দিল। বাবার দিকে দৌড়ে আসতে চাইলাম, আমার যেন আমার বাহু ধরে টেনে আরো দূরে নিয়ে গেল, সাথে সাথে আরো একটি ধাক্কায় আরো দূরে সরে গেলাম। বাবা ভীড়ের মাঝে হারিয়ে গেল, বাবার পতনস্থলের দিকে যতই আসতে চাই ততই দূরে চলে যাই। আমি বুঝতে পারলাম কেউ আমাকে দীপালীর মত করে বাবা থেকে আলাদা করে নিয়ে যাচ্ছে, এক্তা লোকের সাহায্য চাইলাম কিন্তু কারো তরে কেউ নয়, সবাই নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত। একটা যুবক আমাকে হাত ধরে নিয়ে টেনে নিয়ে যাচ্ছে হাজার মানুষের সামনে থেকে, আমি চিতকার দিয়ে বললাম কোথায় নিয়ে যান আমাকে?সাহস করে একজন বাধা দিল, বলল এই আপনি মেয়েটির কে হউন যে তাকে এভাবে নিয়ে যাচ্ছেন? বলল, এর বাবা আহত হয়ে পড়ে আছে আমরা তার চিকিতসা করছি ,তার বাবার কাছে নিয়ে যাচ্ছি। বললাম ও মিথ্যা বলছে, আমি ওকে চিনিনা। যুবক্টি বলল, তোমার নাম রত্না নয়? বললাম হ্যাঁ।

তাহলে আমার সাথে আস তাড়াতাড়ি তোমার বাবা বাচবেনা। সঠিক নাম বলাতে তার সাথে যেতে লাগলাম। ঐ লোক্টি ও আর বাধা দিলনা আমাকে নিয়ে ছেলেটি ভীড়ের বাইরে চলে এল।আমি জানতে চাইলাম আমার বাবা কোথায়? বলল, আমার অন্য বন্ধু কাধে করে মেডিকেলে নিয়ে গেছে। আমি তার সাথে মন্ত্রমুগ্ধের মত মেডিকেলের দিকে ছোটতে লাগলাম। প্রায় পায়ে হেটে আধা ঘন্টা আসার পর একটা একতলা দালান বাড়িতে আমায় নিয়ে সে প্রবেশ করল। আমি দৌড়ে গিয়ে বাবা কই বাবা কই বলে এদিক ওদিক তাকাতে লাগলাম। ছেলেটি হা হা হা করে হেসে উঠে তার পুংলিংগের দিকে ইশারা করে আমায় দেখাল বাবা কোথায় পাবে বাবাত একে দিয়ে বানানো হবে, আর তুমি হবে মা হাহাহাহাবাড়ির চারিদিক চেয়ে দেখলাম এটা একটা পতিত পোড়া বাড়ী। আমাদের আওয়াজ শুনে আরো দুজন পাশের কামরা থেকে মোমের বাতী নিয়ে এগিয়ে আসল। আমার বুঝতে বাকী রইলনা যে আমার ভাগ্যে কি ঘটবে

0 comments:

Post a Comment

" কিছু স্বপ্ন আকাশের দূর নীলিমাক ছুয়ে যায়, কিছু স্বপ্ন অজানা দূরদিগন্তে হারায়, কিছু স্বপ্ন সাগরের উত্তাল ঢেউ-এ ভেসে যায়, আর কিছু স্বপ্ন বুকের ঘহিনে কেদে বেড়ায়, তবুও কি স্বপ্ন দেখা থেমে যায় ? " সবার স্বপ্নগুলো সত্যি হোক এই শুভো প্রার্থনা!

Follow me