যৌবনের সুবাস ভাসতে শুরু করেছে মাত্র


গত দুমাস ধরে রুবি আমার সামনে মুলা ঝুলিয়ে রেখেছিল নববর্ষের প্রথম দিনে সব হবে। দুদিন ধরে সবকিছু করার প্রস্ততি নিচ্ছি আমি। রুবেলদের বাসায় ডেটিঙ এর ব্যবস্থা থেকে শুরু করে পকেটে কনডম রাখা পর্ব শেষ। কিন্তু সকাল দুপুর বেয়ে বিকেল হয়ে গেল তবু রুবি এল না। মেজাজ খারাপ হয়ে গেল। ফোনে রাগারাগি করলাম ওর সাথে

কি করি কি করি। মাথা ঠিক নেই। বুঝতে পারছি না কি করব। হঠাৎই সুহেলের ফোন পেলাম।

-দোস্ত মশির বাসায় একটু যেতে পারবি?

-কেন?

-ফ্রান্স থেকে মশি কিছু জিনিস পাঠিয়েছে। রাকেশের দোকানে রাখা আছে, তুই ওগুলো ওদের বাসায় পৌছাইয়া দে না প্লিজ!

তারপর কিছুক্ষন ভেবে বললাম, আচ্ছা টিকাছে।

মশির বাসায় গিয়ে দেখি খালাম্মা বেরুচ্ছেন। আমায় দেখে তিনি খুশি হলেন। বেশ কিছুক্ষন কথা বলার পর বললেন,

-রানা, শিমুকে বাসায় একা রেখে আমার মায়ের বাসায় যাচ্ছি। ওখানে আবার আমাদের সবভাইবোন আজ একসাথে হয়েছে। আমি না ফেরা পর্যন্ত তুমি একটু থাক না বাবা।

আমি মনে মনে দিনটাকে তখন কুফা বলে গাল দিচ্ছিলাম। কিন্তু এমনিতে বললাম, ঠিকাছে খালাম্মা আপনি কোন চিন্তা করবেন না। আপনি না আসা পর্যন্ত আমি আছি। খালাম্মা বের হয়ে গেলেন।আমি বাসার দরজা লাগিয়ে শিমুকে ভেতরে খুজতে গেলাম। শিমু মশির সবচেয়ে ছোটবোন।দুবছর হবে ওকে আমি দেখিনি। পাচ বছর আগে যখন ওসিক্সে পড়ত তখন আমার খুব ন্যাওটা ছিলো। মশি তখন দেশে ছিল। আমি মাঝে মধ্যে শিমুকে অংক আর ইংরেজীটা দেখিয়ে দিতাম। তখন থেকেই খুব সহজ সম্পর্ক ওর সাথে। শিমুকে আমি পেলাম এর রুমে ঘুমন্ত অবস্থায়। ১৫/১৬ বছরের এক সদ্য তরুনী সে। চমত্কার টানা চোখ মুখ মুখের গঠন। যৌবনের সুবাস ভাসতে শুরু করেছে মাত্র। ডাক দিলাম, এই শিমু?

শিমু ধরফর করে ঘুম ভেঙে উঠল। তারপর আমাকে দেখে সহজ ভঙ্গিতে বলল ও রানা ভাই। কি খবর,তুমি তো আমাদের বাসায় আসোনা। আজ কি মনে করে?

-তোর পাহারাদার হিসেবে আজ আমি নিয়োগ পেয়েছি। তুই নাকি বেসামাল হয়ে যাচ্ছিস?

-ইস আমার পাহরাদাররে

0 comments:

Post a Comment

" কিছু স্বপ্ন আকাশের দূর নীলিমাক ছুয়ে যায়, কিছু স্বপ্ন অজানা দূরদিগন্তে হারায়, কিছু স্বপ্ন সাগরের উত্তাল ঢেউ-এ ভেসে যায়, আর কিছু স্বপ্ন বুকের ঘহিনে কেদে বেড়ায়, তবুও কি স্বপ্ন দেখা থেমে যায় ? " সবার স্বপ্নগুলো সত্যি হোক এই শুভো প্রার্থনা!

Follow me