কীভাবে সাজাবেন প্রিয় বইগুলো


বই পড়া ও সংগ্রহ করার অভ্যাস সবারই থাকে। কিন্তু বই কোথায় রাখা যাবে, তা নিয়ে পড়তে হয় মুশকিলে। কোন ঘরে কীভাবে তৈরি করবেন লাইব্রেরি কর্নার জেনে নিন তার কিছু পরামর্শ:

ড্রয়িং রুম: ড্রয়িং রুমে কিছুটা জায়গা থাকলে সেখানেই তৈরি করে ফেলুন লাইব্রেরি কর্নার। একটা কর্নারে মেঝে থেকে সিলিং পর্যন্ত দেয়ালজোড়া কেবিনেট তৈরি করে ফেলুন বই রাখার জন্য। যেহেতু সিলিং পর্যন্ত তাক, তাই বই নামানোর জন্য একটা ফোল্ডিং সিঁড়ি রাখুন। যেসব বই কম ব্যবহূত হয়, সেগুলো ওপরের অংশে রাখুন। বুক শেলফে নান্দনিকতা আনতে বইয়ের তাকের মাঝে মধ্যে কিছু শোপিস, ফুলদানি বা পুতুল রাখুন। চাইলে ইনডোর প্লান্টও রাখতে পারেন।

বুক শেলফের নিচের অংশে বা পাশে মিউজিক সিস্টেম রাখুন। বই পড়তে পড়তে গান শুনতে মন্দ লাগবে না। পছন্দের কিছু সিডি-ডিভিডিও সঙ্গে রাখুন। হাত-পা ছড়িয়ে একটু বিশ্রাম নিতে নিতে বই পড়ার জন্য বইয়ের তাকের পাশে লো হাইট ডিভান বা বসার ব্যবস্থা রাখুন। যাদের মেরুদণ্ডে সমস্যা আছে, তারা উঁচু চেয়ার রাখুন। বসার ঘরে জায়গা না থাকলে ফ্যামিলি লিভিংয়েও একইভাবে তৈরি করুন ছোট লাইব্রেরি কর্নার।

ব্যবহার করুন করিডর: করিডর একটু বড় হলে সেখানে চমত্কার একটি লাইব্রেরি কর্নার হতে পারে। ঘরের প্রবেশমুখে যে করিডর থাকে, সেখানে লাইব্রেরি না করাই ভালো। লাইব্রেরির জন্য ফ্ল্যাটের ভেতরের করিডর বেছে নিন। করিডরেও সিলিং পর্যন্ত দেয়ালজোড়া বইয়ের তাক তৈরি করতে পারেন। আবার মেঝে থেকে সাত ফুট উঁচু শেলফ তৈরি করে নিন। শেলফের প্রতিটি তাকের উচ্চতা ও ভেতরের মাপ এক ফুট হলে ভালো, এতে ম্যাগাজিন সাইজের বইও রাখতে পারবেন। করিডরের বুক শেলফে একটা স্পট লাইট দিন। সম্ভব না হলে বুক শেলফের বিপরীত দেয়ালে লাইট দিন।

বেডরুম:

বেডরুমে একটা কর্নার বেছে নিন লাইব্রেরির জন্য অথবা একটা খালি দেয়াল পাওয়া গেলে পুরো দেয়ালটাই কাজে লাগাতে পারেন। দেয়ালের অর্ধেক অংশে আলমারি বা কেবিনেট করুন। বাকি অংশে তাক করে লাইব্রেরি কর্নার তৈরি করুন।

অনেক সময় বেডরুম ও ডাইনিং রুমের ভেতরে বিম পড়ে যায়। বিমের এ কর্নারে মেঝে থেকে সিলিং পর্যন্ত বইয়ের তাক তৈরি করে ফেলুন।

পরামর্শ:

ছোট পরিসরের তাকে বই সাজানোর সবচেয়ে ভালো পদ্ধতি হচ্ছে বিষয়ভিত্তিক যেমন— গল্প, কবিতা,  প্রবন্ধ, নাটক, উপন্যাস, জীবনী, ধর্ম, রাজনীতি, অর্থনীতি প্রভৃতি বিষয় অনুযায়ী বই ভাগ করে আলাদা তাকে সাজিয়ে রাখুন।

বইয়ের যে অংশে লেখক ও বইয়ের নাম আছে, সে অংশ সামনের দিকে রাখুন। এতে বই সহজে খুঁজে পাওয়া যায়।

মাসে একবার বইয়ের তাক পরিষ্কার করুন। ভ্যাকুয়াম ক্লিনার ব্যবহার করতে পারলে ভালো।

সূর্যের আলো সরাসরি পড়ে এমন কোথাও শেলফ রাখবেন না। সূর্যের আলো বইয়ের ওপর পড়লে তা ধীরে ধীরে বিবর্ণ হয়ে যায়।

0 comments:

Post a Comment

" কিছু স্বপ্ন আকাশের দূর নীলিমাক ছুয়ে যায়, কিছু স্বপ্ন অজানা দূরদিগন্তে হারায়, কিছু স্বপ্ন সাগরের উত্তাল ঢেউ-এ ভেসে যায়, আর কিছু স্বপ্ন বুকের ঘহিনে কেদে বেড়ায়, তবুও কি স্বপ্ন দেখা থেমে যায় ? " সবার স্বপ্নগুলো সত্যি হোক এই শুভো প্রার্থনা!

Follow me